জামায়াত নিয়ে উভয়সংকটে বিএনপি

0
53

 

 

স্বাধীনতাবিরোধী দল জামায়াতকে নিয়ে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগেও নানা রকমের সংকটে ছিল বিএনপি। ড. কামাল হোসেনের দল গণফোরামসহ বেশ কয়েকটি রাজনৈতিক দল বিএনপির সঙ্গে জোট গড়তে দেরি করে মূলত জামায়াতের কারণে।

একপর্যায়ে ২০ দলীয় জোটের বাইরে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট নামে নতুন জোট গড়া হলেও জামায়াত নেতাদের ধানের শীষ প্রতীক দিয়ে আসন ছাড় দেওয়ায় নির্বাচনের পর অসন্তোষ ব্যক্ত করেন ড. কামাল হোসেন। জামায়াতের সঙ্গ ছাড়তে বিএনপির ওপর চাপ প্রয়োগ করবেন বলেও গত শনিবার জানিয়েছেন ঐক্যফ্রন্টের এই শীর্ষ নেতা। বিএনপির মধ্যম সারির অনেক নেতাও এখন মনে করছেন, জামায়াতের সঙ্গে জোটবদ্ধ থাকায় বিএনপি নানাভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। তাঁদের মতে, জামায়াতকে জোট থেকে বের করে দেওয়া উচিত। তবে ভোটের হিসাবসহ নানা কারণ দেখিয়ে দলটিকে দূরে ঠেলে দিতে চাইছে না বিএনপির শীর্ষ নেতৃত্ব। বিএনপি ও এর মিত্র দলগুলোর বিভিন্ন স্তরের বেশ কয়েকজন নেতার সঙ্গে কথা বলে এসব তথ্য জানা গেছে।

জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের শীর্ষ নেতা ও গণফোরাম সভাপতি ড. কামাল হোসেন গত শনিবার এক সংবাদ সম্মেলনে বলেন, ‘জামায়াতকে নিয়ে আমরা রাজনীতি কখনো করিনি, কোনো দিন রাজনীতি করার কথা চিন্তাও করিনি। যেটা বলা হয়েছে যে করেছি, সেটা আমি সঙ্গে সঙ্গে বলেছি, এটা তো আমাদের বলা হয়নি, তারা (জামায়াত) থাকবে এটার মধ্যে। ভবিষ্যতে এ ব্যাপারটি একদম পরিষ্কার।

জামায়াতকে নিয়ে আমরা রাজনীতি করব না। ’ তিনি আরো বলেন, ‘জামায়াতের সঙ্গে অতীতে যেটা হয়েছে, সেটা অনিচ্ছাকৃত ভুল। তারা যে ধানের শীষে জামায়াতের ২২ জনকে মনোনয়ন দেবে, সেটা আমরা জানতাম না। ’

বিএনপির জাতীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য বজলুল করিম আবেদ কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘জামায়াতের সঙ্গে জোটবদ্ধ হওয়ার পর থেকেই বিএনপি নানাভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। সেই ক্ষতি পুষিয়ে নিতে বিএনপির অনেক সময় ব্যয় করতে হবে। তাই আমি মনে করি, এ মুহূর্তে জামায়াতকে জোট থেকে বের করে দেওয়া উচিত। ’

স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি শফিউল বারী বাবু বলেন, ‘জামায়াতের সঙ্গে বিএনপির আদর্শগত কোনো মিল নেই। ভোটের হিসাবে তাদের সঙ্গে জোট করা হয়েছিল। এখন সময় এসেছে তা নতুন করে ভেবে দেখার। ’