নির্ধারিত সময়ে বেতন পাননি সব পোশাক শ্রমিক

0
22

 

 

করবেন বলে সম্মত হয়েছিলেন। আর বোনাস দেওয়ার কথা ছিল ৩০ মে’র মধ্যে। বিজিএমইএ’র তথ্যমতে শতভাগ কারখানায় বোনাস দেওয়া শেষ হলেও এখনও কিছু কিছু কারখানায় বেতন দেওয়া বাকি রয়েছে। আজকের মধ্যে শতভাগ কারখানাতেই বেতন পরিশোধ হবে বলে প্রত্যাশা বিজিএমইএ’র।
জানতে চাইলে টেক্সটাইল গার্মেন্ট শ্রমিক ফেডারেশনের সভাপতি অ্যাডভোকেট মাহবুবুর রহমান ইসমাইল বলেন, ৩০ শতাংশ গার্মেন্টসে এখনও বেতন পরিশোধ হয়নি। যেহেতু সোমবার ব্যাংক খোলা রয়েছে, বাকি থাকা গার্মেন্টসগুলো হয়তো কাল বেতন দিয়েই ছুটি ঘোষণা করবে। যদি আজকের মধ্যে বেতন দেওয়া না হয়, তাহলে শ্রমিকরা হয়তো পরশু রাস্তায় নামতে বাধ্য হবে। বাংলাদেশ জাতীয় গার্মেন্টস শ্রমিক কর্মচারী লীগের সভাপতি সিরাজুল ইসলাম রনি বলেন, ২০ শতাংশ কারখানা এখনও বেতন পরিশোধ করেনি। আজ পর্যন্ত সময় আছে। আমার আশা করছি এর মধ্যেই সবাই বেতন-ভাতা পরিশোধ করবে।
জানতে চাইলে শ্রমিক সংগঠন ইউনাইটেড ফেডারেশন অব গার্মেন্টস ওয়ার্কাসের সাধারণ সম্পাদক নুরুল ইসলাম বলেন, বেতন বোনাস নিয়ে এবার তেমন কোনো সমস্যা তৈরি হয়নি। ছোটখাটো দু’একটি কারখানা ছাড়া সব জায়গাতেই বেতন ভাতা পরিশোধ করা হয়েছে। আর যেসব জায়গায় সমস্যা ছিল, বিজিএমইএ বসে আগেই তার সমাধান করেছিল। ফলে, বেতন ভাতা নিয়ে এ বছর শ্রমিকদের তেমন কোনো অভিযোগ নেই।
এ প্রসঙ্গে বিজিএমইএ সভাপতি রুবানা হক বলেন, গতকালের মধ্যে বেতন দেওয়ার কথা ছিল। ৯০ ভাগ কারখানায় এরই মধ্যে বেতন দেওয়া শেষ হয়েছে। যারা বলছেন ৩০ শতাংশ কারখানায় বেতন দেওয়া হয়নি আমরা জানতে চাই কোন কোন কারখানায় বেতন দেওয়া হয়নি। শ্রমিকের স্বার্থে তাদের নাম বলতে হবে। যেহেতু আজ সোমবার ব্যাংক খোলা আছে, আমরা সেইসব কারখানার সমস্যা সমাধান করতে চাই।