ঈদে শপিং করতে পারেননি শাহতাজ

0
14

 

 

ঈদ সবার জন্যই আনন্দের। এই তালিকার বাইরে নন রূপালী পর্দার তারকারাও। সাধাধণ মানুষের মতোই ঈদের আনন্দ ভাগাভাগি করেন তারা। পরিবার এবং বন্ধুদের সঙ্গে নানা আয়োজনে পার হয় ঈদের দিন। এদিকে প্রিয় তারকার বিশেষ এই দিনটি কিভাবে পার হয়, সেদিকেও খেয়াল থাকে ভক্ত-দর্শকদের। পছন্দের তারকার ঈদ কিভাবে কেটেছে? শপিং করেছেন কিনা? খাবারের তালিকায় পছন্দের কোন খাবারটি ছিলো? ঈদের সেলামি কাদের থেকে পান? বা কাদেরকে সেলামি দেন? কোথায় কাটিয়েছেন ঈদ? এছাড়া আরো কতো কিছুই না জানতে ইচ্ছা করে ভক্তদের। ওই সব ভক্তদের কথা মাথায় রেখেই ইনকিলাবের এই আয়োজন। আজ শনিবার (৮ জুন) দুপুরে এই প্রতিবেদকের সঙ্গে ঈদের নানা বিষয় নিয়ে মন খুলে কথা বলেছেন মডেল অভিনেত্রী শাহতাজ।
ছোট বেলায় এক বার ঈদ করেছিলেন দাদু বাড়ি মেহেরপুরে। এরপর জীবনের সবগুলো ঈদ তিনি কাটিয়েছেন ঢাকাতেই। প্রতিবারই ঈদুল ফিতরের আগে নিজের জন্য, পরিবারের জন্য এবং কাজিনদের জন্য শপিং করেন এই অভিনেত্রী। কিন্তু এবার একেবারেই শপিংয়ে যেতে পারেননি। দু:খের সঙ্গে শাহতাজ বলেছেন ‘এবার কারো জন্য কোনো ধরনের শপিং করতে পারিনি। কাজের চাপে শপিংয়ে যাওয়ার সময়ই ছিলো না। তবে আরকেটি কথা বলে রাখা ভালো। আমার আবার উপহার পাবার কপাল। বরাবরই ঈদে প্রচুর উপহার পাই আমি। এবারো তার ব্যতিক্রম হয়নি।’
ঈদ সেলামি নিয়ে হাসির ছলে শাহতাজ বলেন, ‘এবার ঈদে একটু লসও হয়েছে। কারো কাছ থেকে সেলামি পাইনি। অবশ্য অন্যদিক থেকেও সেভ হয়েছে। কারণ তেমন কাউকেই সেলামি দিতেও হয়নি। হা. হা. হা..।
ঈদের দিন শুরু হয় কিভাবে জানতে চাইলে শাহতাজ বলেন, ‘অন্যান্য দিনের থেকে আগে আগে ঘুম থেকে ওঠা হয়। এরপর পরিবারের সবার সঙ্গে দেখা করি। কারণ আমরা পরিবারের সবাই এক বাড়িতেই থাকি। এরপর কাজিনরা আসে। তাদের সঙ্গে আড্ডা দেওয়ার পাশাপাশি মায়ের হাতের সুন্দর সুন্দর রেসিপিতে ডুবে থাকি। আবার কোনো কোনো ঈদে নিজেই ঢুকে পড়ি রান্না ঘরে। নতুন নতুন রেসিপি তৈরির চেষ্টা করি। তবে সেটা সব ঈদে নয়। এছাড়া সময় পেলে কাজিন এবং বন্ধুদের সঙ্গে বাইরেও ঘুরতে যাওয়া হয়।’