সীমিত সম্পদের সর্বোচ্চ ব্যবহারে গুরুত্বারোপ শিক্ষামন্ত্রীর

0
25

 

শিক্ষার উন্নয়নে সীমিত সম্পদের সর্বোচ্চ ব্যবহারের ওপর গুরুত্ব দিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি। তিনি বলেন, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে কিংবা কোচিং সেন্টারগুলোতে শিক্ষকরা যা পড়াচ্ছেন, তা খুব সহজেই ইন্টারনেটের মাধ্যমে বিনামূল্যে শিক্ষার্থীদের কাছে পৌঁছানো সম্ভব। বৃহস্পতিবার (১৩ জুন) রাজধানীর একটি হোটেলে সেকেন্ডারি এডুকেশন সেক্টর ইনভেস্টমেন্ট প্রোগ্রামের (সেসিপ) উদ্যোগে ‘মাধ্যমিক পর্যায়ে শিখন-শেখানো কার‌্যক্রমে ই-লার্নিং এর ব্যবহার’ বিষয়ক গোলটেবিল আলোচনায় তিনি এ কথা বলেন।

নামীদামী শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে সন্তানদের ভর্তি করানোর জন্য অভিভাবকদের আপ্রাণ চেষ্টার প্রসঙ্গ টেনে তিনি বলেন, আমাদের বাবা-মা’রা পাগল হয়ে যান ভিকারুননিসা, নটরডেমসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে সন্তানকে ভর্তির জন্য কোচিং করাতে। ওইসব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের বা কোচিং সেন্টারে যেসব শিক্ষকের কাছে তারা পড়বে তাদের ক্লাসটি কি সরাসরি বাংলাদেশের প্রতিটি শিক্ষার্থীর কাছে পৌঁছে দেওয়া যায়না? এই পৌঁছানোর কাজটি বিনামূল্যে করা সম্ভব। ইন্টারনেটে এডুকেশন মেটেরিয়াল এক্সেস করলে খরচ হবে না, আমরা সেই জায়গাটুকু নিতে পারি। সেটা সরকার করতে পারে। তিনি বলেন, উন্নত বিশ্বের অনুসরণ করে আমরা গর্তের মধ্যে পড়তে রাজি না, এমন জিনিস করব যেটার উদ্দেশ্য সফল হবে এবং ধরে রাখতে পারব।

আলোচনায় বিশেষ অতিথি ছিলেন শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল। মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন নর্থ-সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক রোকনুজ্জামান। আলোচনায় অংশ নেন বঙ্গবন্ধু ডিজিটাল ইউনিভার্সিটির ভিসি মুনাজ আহমেদ নূর, বুয়েটের শিক্ষক মো. কায়কোবাদ, এথিকস অ্যাডভান্স টেকনলজির ব্যবস্থাপনা পরিচালক মবিন খান, মাহমুদ উল হক প্রমূখ।