ভৈরবে বিশ্ব জনসংখ্যা দিবস পালিত

0
27

 

 

মিলাদ হোসেন অপু, ভৈরব ॥ 
কিশোরগঞ্জের ভৈরবে বিশ্ব জনসংখ্যা দিবস পালিত হয়েছে। আজ বৃহস্পতিবার বেলা ১১টায় ভৈরব উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা কার্যালয়ের আয়োজনে উপজেলা পরিষদ চত্বর হতে এক বর্ণাঢ্য র‌্যালি বের হয়ে শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে গিয়ে শেষ হয়। র‌্যালি শেষে এক আলোচনা সভা ও পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়। আলোচনা সভার শুরুতে স্বাগত বক্তব্য রাখেন, উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা অফিসার মোহাম্মদ সাফি উদ্দিন।
ভৈরব উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বীরমুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব মো. সায়দুল্লাহ মিয়ার সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার ইসরাত সাদমীন। উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা সহকারী কর্মকর্তা নূর ইসলাম এর সঞ্চালনায় অন্যান্য অতিথিদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. আনিসুজ্জামান, উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান মনোয়ারা বেগম, উপজেলা প.প. কর্মকর্তা ডা. বুলবুল আহমেদ, উপজেলা আওয়ামী লীগ দপ্তর সম্পাদক অধ্যাপক ফজলুর রহমান প্রমুখ।
ছেলে হোক মেয়ে হোক দুটি সন্তানই যথেষ্ট এ শ্লোগানকে প্রতিপাদ্য করে বক্তারা বলেন, আমাদের জনসংখ্যা বৃদ্ধি রোধে জন্মনিয়ন্ত্রণ একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। বর্তমান সরকার জনসংখ্যা বৃদ্ধি রোধে ব্যাপক কার্যক্রম হাতে নিয়েছে। এ সময় বক্তারা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের একটি বক্তব্য স্মৃতিচারণ করে বলেন, একটা কথা ভুলে গেলে চলবে না যে, প্রত্যেক বৎসর আমাদের ৩০ লাখ বাড়ে। আমার জায়গা হল ৫৫ হাজার বর্গমাইল। যদি আমাদের প্রত্যেক বৎসর ৩০ লাখ লোক বাড়ে তাহলে ২৫/৩০ বৎসরে বাংলার কোন জমি থাকবে না হালচাষ করার জন্য। সেজন্য আমাদের পপুলেশন কন্ট্রোল, ফ্যামিলি প্ল্যানিং করতে হবে। তাই আমাদের জনসংখ্যা রোধে সকল পরিবার পরিকল্পনা পরামর্শ অনুযায়ী ফ্যামিলি প্ল্যানিং করতে হবে। আলোচনা শেষে অতিথিবৃন্দ উপজেলার শ্রেষ্ঠ পরিবার কল্যাণ সহকারী হিসেবে রাবেয়া খাতুন, পরিবার পরিকল্পনা পরিদর্শক হিসেবে রাশিদা খাতুন, পরিবার কল্যাণ পরিদর্শিকা হিসেবে সাহিদা আক্তার, শ্রেষ্ঠ উপসহকারী কমিউনিটি মেডিকেল অফিসার হিসেবে মো. হাবিবুর রহমান, শ্রেষ্ঠ ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্র, শ্রেষ্ঠ ইউনিয়ন হিসেবে নির্বাচিত হয়েছেন শিমুলকান্দি ইউনিয়নকে পুরস্কৃত করেন। এছাড়াও বেসরকারি স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা হিসেবে নির্বাচিত হয়েছেন সূর্যের হাসি নেটওয়ার্ক ভৈরব আরবান-১৭৯। সূর্যের হাসি এর পক্ষ থেকে এ পুরস্কার গ্রহণ করেন সংস্থাটির ম্যানেজার কাজী আব্দুল্লাহ আল মাছুম।  এছাড়া ওই অনুষ্ঠানের উপজেলার বিভিন্ন বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক কর্মকর্তা কর্মচারীরা উপস্থিত ছিলেন।