১৮ দিনেও রাণীনগরের ধর্ষণের আসামী মোহন আটক হয়নি

0
11

আশরাফুল নয়ন, নওগাঁ প্রতিনিধিঃ   নওগাঁর রাণীনগরে সপ্তম শ্রেণীর স্কুল পড়–য়াছাত্রীকে একাধিকবার ধর্ষণ করার ঘটনায় মামলার ১৮দিন অতিবাহিতহলেও ধরাছোয়ার বাহিরে ধর্ষক মোহন আলী। প্রধান আসামীকে আজও পুলিশ গ্রেফতার করতে পারেনি। ধর্ষনের ঘটনার শুরু থেকেই কতিপয় প্রভাবশালী মোড়লরা ঘটনাটি ধামাচাপা দেয়ার অপচেষ্টায় লিপ্ত ছিল।

এখন মামলার পর আসামীদের বাঁচানোর জন্য তারাদেনদরবার-তদবির করেই যাচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে। ঘটনাটিঘটেছে উপজেলার মিরাট ইউনিয়নের হরিশপুর গ্রামে।মামলা ও ভুক্তভুগির পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার মিরাটইউনিয়নের হরিশপুর গ্রামের অটো ভ্যান চালক আজিজার রহমানেরকলেজ পড়–য়া ছেলে মোহন আলী(২৩) পাশের একটি গ্রামের জনৈক ব্যক্তির স্কুল পড়–য়া ৭ম শ্রেণীর ছাত্রীর সাথে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তোলে।

এক পর্যায়ে বিয়ের প্রলোভন দিয়ে প্রেমিক মোহন আলী গত ৭ জুন সুকৌশলে প্রেমিকাকে নিয়ে অজানার উদ্দ্যেশে পাড়ি জমায়। এ সময় বিভিন্ন জায়গায় ঘোরাফেরার মধ্যে বেশ কয়েকবার মোহন মেয়েটিকে ধর্ষণ করে এবং বিয়ে না করে ২ দিন পর প্রেমিকাকে বাবার বাড়ীতে পাঠিয়ে দেয়।

ঘটনা জানাজানি হলে এলাকার কতিপয় গ্রাম্য মোড়লরা ঘোলা পানিতে মাছ শিকার করতে তৎপর হয়ে ওঠে এবংসময় অতিবাহিত করার সুকৌশল হিসেবে দেন দরবার চালিয়ে যেতেথাকে। উপায় অন্তর না পেয়ে ধর্ষিতা ছাত্রীর মা থানার আশ্রয় নিয়ে ধর্ষক মোহনসহ আরো ৫/৬ জনকে আসামী মামলা দায়ের করেন। মামলা নং-১৬, তাং ২৪/০৬/১৯ ধারা-৭/৯(১)৩০ নারী ও শিশু নির্যাতনদমন আইন।

এ বিষয়ে ধর্ষিতার বড় ভাই মিঠু বলেন মামলা করে প্রায় ১৮ দিন পারহচ্ছে। আসামীরা পলাতক থাকার কারণে পুলিশ এখনো কাউকে আটককরতে পারেনি। আমরা চাই আসামীদের দ্রুত আটক করে কঠিনশাস্তির আওতায় আনা হোক।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা উপ-পরির্দশক মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, ধর্ষন মামলার কোন আসামীকে আটক করা সম্ভব হয়নি। আসামীদের সাথে পুলিশের সমন্বয় থাকায় তারা আটক হচ্ছেব না এই প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন সমন্বয় করতেই পারে এটা কোন ব্যাপার হলো নাকি। এছাড়া পুলিশ আসামী ধরতে না পারলে এরকম অভিযোগ হতেই পারে।