মশক নিয়ন্ত্রণে বাজেট দ্বিগুণ করলো ডিএসসিসি

0
6

 

 

চলতি অর্থবছরে ৩ হাজার ৬৩১ কোটি ৪০ লাখ টাকার বাজেট ঘোষণা করেছে ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশন (ডিএসসিসি)।

বাজেটে মশক নিয়ন্ত্রণ কার্যক্রমের (মনিটরিং/সার্ভাইলেন্সসহ) বাজেট দ্বিগুণের বেশি বৃদ্ধি করা হয়েছে।

রোববার (১ সেপ্টেম্বর) দুপুরে নগর ভবনে মেয়র হানিফ অডিটোরিয়ামে ২০১৯-২০ অর্থবছরের বাজেটোত্তর সংবাদ সম্মেলনে মেয়র মোহাম্মদ সাঈদ খোকন এসব তথ্য তুলে ধরেন। এর আগে বোর্ড সভায় বাজেট অনুমোদন দেওয়া হয়। কাউন্সিলরদের উপস্থিতিতে বোর্ড সভা অনুষ্ঠিত হয়।

প্রস্তাবিত বাজেটে মশক নিয়ন্ত্রণের জন্য ৪৩ কোটি ৩০ লাখ টাকা বরাদ্দ রাখা হয়েছে। গত বছর সংশোধিত বাজেটে বরাদ্দের পরিমাণ ছিল মাত্র ১৯ কোটি ৫২ লাখ টাকা।

জ্বালানিসহ মশক ওষুধের জন্য ৩৮ কোটি টাকা, কচুরিপানা, আগাছা পরিষ্কার ও পরিচর্যার জন্য ১ কোটি ৩০ লাখ এবং ফগার, হুইল, স্প্রে মেশিন পরিবহনের জন্য ৪ কোটি টাকা বরাদ্দ রাখা হয়েছে বাজেটে।

মেয়র সাঈদ খোকন বলেন, ডেঙ্গুর কারণে যারা আমাদের ছেড়ে চলে গেছে তাদের আত্মার মাগফিরাত কামনা করছি। যারা এখনো অসুস্থ তাদের সুস্থতা কামনা করছি। মশার উৎপাত কমাতে এবার দ্বিগুণ বাজেট রাখা হয়েছে। এছাড়াও এবছর মশক নিয়ন্ত্রণে লার্ভা ধ্বংসসহ অভিযান জেল-জরিমানা চলমান আছে। এবার সিটি কর্পোরেশন সারাবছর মশক নিধন নিয়ে গবেষণার জন্য পৃথক একটি বিভাগ খুলে ও পৃথক জনবল নিয়োগ করা হবে।

২০১৯-২০ অর্থবছরের বাজেটে নিজস্ব উৎস থেকে আয়ের লক্ষ্যমাত্রা ৯৭২ কোটি ৮০ লাখ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। এর মধ্যে হোল্ডিং ট্যাক্স বাবদ আয় ৩৫০ কোটি টাকা, বাজার সালামি বাবদ ৩১০ কোটি, বাজার ভাড়া বাবদ ৩৫ কোটি। এছাড়া ট্রেড লাইসেন্স বাবদ ১০ কোটিসহ কয়েকটি খাতের আয়ের কথা বলা হয়েছে।

বিদ্যুত, জ্বালানি ও গ্যাসে ব্যয় ৭৯ কোটি, মেরামত ও রক্ষণাবেক্ষণে ব্যয় ৩৩ কোটি ৩৫ লাখ টাকা। আর বাজেটে কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বেতন-ভাতা বাবদ খরচ ধরা হয়েছে ৩৫০ কোটি টাকা।