জিম্বাবুয়ের সাবেক প্রেসিডেন্ট মুগাবের জীবনাবসান

0
8

 

জিম্বাবুয়ের সাবেক প্রেসিডেন্ট রবার্ট মুগাবে মারা গেছেন। সিঙ্গাপুরের একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন তিনি। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৯৫ বছর।

শুক্রবার (৬ সেপ্টেস্বর) স্থানীয় একাধিক সূত্রের বরাতে এতথ্য জানিয়েছে আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমগুলো।

তার পরিবারের বরাত দিয়ে বিবিসি জানিয়েছে, ৯৫ বছর মুগাবের স্বাস্থ্যের অবস্থা বেশ কিছুদিন ধরেই ভালো যাচ্ছিল না।

রয়টার্স জানিয়েছে, সিঙ্গাপুরের একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন মুগাবে, শুক্রবার সকালে সেখানেই তার মৃত্যু হয়।

তার মৃত্যুর খবর জানিয়ে জিম্বাবুয়ের প্রেসিডেন্ট এমারসন এমনানগাগোয়া এক টুইটে বলেন, গভীর শোকের সঙ্গে জিম্বাবুয়ের প্রতিষ্ঠাতা সাবেক প্রেসিডেন্ট রবার্ট মুগাবের মৃত্যুসংবাদ আমাকে জানাতে হচ্ছে।

এমনানগাগোয়া লিখেছেন, মুগাবে ছিলেন আমাদের স্বাধীনতা সংগ্রামের প্রতীক, প্যান-আফ্রিকা মতবাদের একজন সমর্থক, যিনি তার জীবন উৎসের্গ করেছিলেন জনগণের মুক্তি আর ক্ষমতায়নের জন্য।

১৯৮০ সাল থেকে দুই মেয়াদে প্রায় ৩৭ বছর জিম্বাবুয়ে শাসন করেছেন রবার্ট মুগাবে। দেশটির প্রধানমন্ত্রী ও প্রেসিডেন্ট দুই পদেই দায়িত্ব পালন করেছেন আলোচিত এ নেতা।

২০১৭ সালে সামরিক অভ্যুত্থানের মাধ্যমে মুগাবে সরকারের পতন ঘটে। তবে, তার আগেই পদত্যাগের শর্ত হিসেবে নিজের নিরাপত্তার বিষয়টি নিশ্চিত করেন তিনি।

জিম্বাবুয়ের জাতির পিতার ইচ্ছা ছিল নিজ দেশেই শেষ সময়টুকু কাটানোর। তবে, সেটি পূরণ হয়নি। দীর্ঘদিন নানা অসুখ-বিসুখের সঙ্গে লড়ে অবশেষে সিঙ্গাপুরের একটি হাসপাতালে মারা যান তিনি।

জিম্বাবুয়ে স্বাধীন হওয়ার পর অনুষ্ঠিত প্রথম নির্বাচনে জিতে ১৯৮০ সালে প্রধানমন্ত্রী হন তিনি। পরে, ১৯৮৭ সালে প্রেসিডেন্টের দায়িত্বভার গ্রহণ করেন এ নেতা।

শাসনামলের শুরুর দিকে দেশের স্বাস্থ্য ও শিক্ষা খাতের ব্যাপক উন্নয়নের কারণে প্রশংসিত হন তিনি। তবে, শেষদিকে তার ভূমি সংস্কার কার্যক্রম ব্যাপক সমালোচনার জন্ম দেয় ও দেশের অর্থনীতি একেবারে ভেঙে পড়ে। এছাড়া, দুর্নীতি ও মানবাধিকার লঙ্ঘনেরও অভিযোগ উঠেছিল আলোচিত এ নেতার বিরুদ্ধে।

১৯৮০ সালে ব্রিটিশ শাসন থেকে স্বাধীন হওয়ার পর থেকে টানা ৩৭ বছর জিম্বাবুয়ের দণ্ডমুণ্ডের কর্তা ছিলেন মুগাবে। ২০১৭ সালের নভেম্বরে এক সামরিক অভ্যুত্থানে প্রেসিডেন্ট পদ থেকে তাকে উৎখাত করা হয়।

রবার্ট মুগাবের জন্ম ১৯২৪ সালের ২১ ফেব্রুয়ারি। ১৯৬৪ সালের দিকে তৎকালীন রোডেশিয়া সরকারের সমালোচনা করায় এক দশকেরও বেশি সময় বিনা বিচারে বন্দী করে রাখা হয় তাকে। কারাগারে থাকাকালীন ১৯৭৩ সালে জিম্বাবুয়ে আফ্রিকান ন্যাশনাল ইউনিয়নের প্রেসিডেন্ট হিসেবে মনোনীত হন মুগাবে।