মানুষ সরকারের পতনের অপেক্ষায় রয়েছে-রিজভী

0
47

ঢাকা প্রতিনিধিঃ   বুধবার নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব অ্যাডভোকেট রুহুল কবির রিজভী মন্তব্য করে বলেন, যে কোনও সময় সরকারের পতন হবে। মানুষ সরকারের পতনের অপেক্ষায় রয়েছে।

তিনি অভিযোগ করে বলেন, কাদের সাহেব নাটক করে ইনিয়ে বিনিয়ে উদোর পিণ্ডি বুদোর ঘাড়ে চাপালে মানুষ তা বিশ্বাস করবে না। ১/১১ এর কথা বলে পার পাবেন না।

রিজভী বলেন, আওয়ামী লীগ কী করে শহীদ মিনার থেকে মিছিল নিয়ে কূটনৈতিক পাড়ায় গিয়েছিল আমরা তা ভুলে যাইনি। ক্ষমতায় থেকেও তো ওনারা নালিশ দেন।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের উদ্দেশে বিএনপির এ মুখপাত্র বলেন, ‘তিনি কিন্তু বলেননি কী ধরনের শান্তি। হত্যা, গুপ্ত হত্যা, ক্রসফায়ার, গুম আর অদৃশ্য হয়ে যাওয়ার ভয়ে আতঙ্কিত মানুষকে দেখে তিনি শান্তিময় বলতেই পারেন। কিন্তু সেটা যে কবরের শান্তি, গোরস্তানের নীরবতা, তা তিনি টের পান না ক্ষমতার উষ্ণতায়। কিন্তু নীরব মানুষের ক্ষোভ যে ছাই চাপা আগুনের মতো ধিকিধিকি জ্বলছে এবং সেটা যেকোনো সময় কুণ্ডলী পাকিয়ে বিরাট আকার ধারণ করতে পারে, সেটির আঁচ পেরেই বেসামাল কথা বলছেন।’

তিনি বলেন, মানুষ যখন গণবিচ্ছিন্ন হয়ে যায়, পায়ের নীচে থেকে যখন মাটি সরে যায় তখন প্রলাপ বকে। ওবায়দুল কাদের সাহেবরা এখন প্রলাপ বকছেন।

বিএনপি নেতা বলেন, ‘চলমান ছাত্র আন্দোলন সরকারি সহিংসতার ছোবলে রক্তাক্ত। শিক্ষার্থীদের যৌক্তিক দাবি মেনে না নিয়ে এখন অবলম্বন করা হয়েছে নির্যাতনের পথ। দেখানো হচ্ছে নানা ধরনের নাটক ও প্রহসন। আন্দোলন শুরু হওয়ার দুদিন পর ওবায়দুল কাদের সাহেব বললেন, এবার মাঠে নামবে ছাত্রলীগ। ছাত্রলীগকে তো মাঠে নামানো হলো কী কারণে, তার নমুনা তো সারা দেশবাসী দেখল। নিরস্ত্র শিক্ষার্থীদের সশস্ত্র হামলা করতে ও সাংবাদিকদের ওপর হামলা করতেই তাদের নামনো হয়েছিল। রক্তাক্ত শরীরে ভয়ার্ত আর্তনাদে ছোটাছুটি করতে দেখা গেছে কোমলমতি শিক্ষার্থী আর সাংবাদিকদের।’

রিজভী বলেন, তারা শাক দিয়ে মাছ ঢাকতে পারছেন না বলেই এখন প্রলাপ বকতে শুরু করেছেন, গুজবের আশ্রয় নিয়েছেন। ক্ষমতাসীনরা তাদের নিজস্ব মিডিয়া দিয়ে বিএনপির বিরুদ্ধে নোংরা অপপ্রচারে মেতে উঠেছেন। ছাত্র আন্দোলনের সহিংসতায় বিএনপিকে জড়াতে তারা কুৎসিত অপকৌশলের আশ্রয় নিয়েছে।

তিনি বলেন, গত ৬ আগস্ট দৈনিক জনকণ্ঠে একটি ছবি ছাপা হয়েছে, যা ২০১২ সালের ২৫ জানুয়ারি দৈনিক ভোরের কাগজে ছাপা হয়েছিল। ছবিতে দেখানো হয়েছে ছাত্রদলের এক নেতার নাম। আসলে সে ছাত্রদলের নেতা নন, এটা ছাত্রলীগের অভ্যন্তরীণ সংঘর্ষের ছবি। ছবির সবাই ছাত্রলীগ করতো।

নির্বাচন কমিশনের সমালোচনা করে রিজভী বলেন, ‘গতকাল সিইসি (প্রধান নির্বাচন কমিশনার কে. এম. নুরুল হুদা) বলেছেন নির্বাচনে অনিয়ম হবে না, সে নিশ্চয়তা দেওয়া যায় না। কেন নিশ্চয়তা দেওয়া যায় না, কারণ ওবায়দুল কাদের সাহেবরা সুষ্ঠু নির্বাচনী পরিবেশও ধ্বংস করে দিয়েছে।’