দুই হাত ছাড়াই বিশ্ববিদ্যালয়ের গণ্ডি পেরিয়ে আজ ফাল্গুনী অফিসার

0
25

 

হাত দুটি নেই বললেই চলে। পরিবারের চরম আর্থিক সংকট, অসময়ে বাবার মৃত্যু ইত্যাদি কত চ্যালেঞ্জ। পটুয়াখালীর গলাচিপার প্রত্যন্ত গ্রামের একটা মেয়ের জন্য সেগুলো হিমালয়সম; কিন্তু তাতে দমে যাননি ফাল্গুনী। এখন তিনি একটি বেসরকারি কোম্পানির হিউম্যান রিসোর্স অফিসার।

 

ফাল্গুনীর সংগ্রামের গল্প বলছেন পিন্টু, রঞ্জন ও অর্ক চার বোনের মধ্যে ফাল্গুনী তৃতীয়। আর দশটি শিশুর মতোই হেসে-খেলে বেড়ে উঠছিলেন। ২০০২ সাল ফাল্গুনী তখন দ্বিতীয় শ্রেণির ছাত্রী। পাশের বাড়ির ভবনের ছাদে বন্ধুদের সঙ্গে খেলছিলেন। হঠাৎ বিদ্যুতের তারের সঙ্গে শক লেগে তার হাতের কনুই পর্যন্ত পুড়ে যায়।

 

পরে আর্তচিৎকার শুনে প্রতিবেশীরা উদ্ধার করে প্রথমে গলাচিপা সদর হাসপাতালে, পরে বরিশালের শেরেবাংলা মেডিকেল কলেজে নিয়ে যান। দেশের চিকিৎসা কাজে দিচ্ছিল না। একসময় কলকাতায় নেয়া হলো। কোনো বেসরকারি হাসপাতাল ভর্তি নিতে চায়নি। পরে অনেক কষ্টে কলকাতা মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়। ততদিনে ফাল্গুনীর হাতে পচন ধরে যায়।

 

সেখানকার ডাক্তার বললেন, ‘বড্ড দেরি হয়ে গেছে। এভাবে পচতে থাকলে একসময় ক্যান্সার হয়ে যেতে পারে। তাই হাত আর রাখা যাবে না।’ যা হোক, কনুই থেকে কেটে ফেলা হলো ফাল্গুনীর দুই হাত। হাতের ঘা শুকাতে মাস চারেকের মতো লাগল।

 

প্রতিবেশীরা আফসোস করে বলত, মেয়েটার আর পড়াশোনা হবে না। তবে ফাল্গুনী দমে যাওয়ার পাত্রী নন। কাগজ-কলম দেখলে মন খারাপ হতো। সহপাঠীদের স্কুলে যেতে দেখলে চোখের কোণে জল আসত। ভাবতেন, ‘পৃথিবীতে কিছুই তো অসম্ভব নয়। তবে আমি কেন পারব না?’ একদিন সাহস করে কলম নিয়ে খাতার ওপর লিখতে চেষ্টা করলেন। এভাবে কিছুদিন প্র্যাকটিস করলেন। পরে একদিন দুই হাতের কনুইয়ের মাঝখানে কলম রেখে লেখার কৌশল আয়ত্তের চেষ্টা করলেন।

 

এ বিষয়ে ফাল্গুনী বলেন, শুরুতে ভীষণ কষ্ট হতো। এলোমেলো হয়ে যেত লাইন। কলম ধরতে ধরতে একসময় হাতে ইনফেকশনও হয়েছিল। ডাক্তারও বারণ করেছিলেন এভাবে লিখতে। তবে আমি হার মানিনি। অদম্য ইচ্ছাশক্তির জোরে একসময় ঠিকই লেখা আয়ত্তে চলে আসে।

 

পরের বছর তৃতীয় শ্রেণিতে ভর্তি হন। গলাচিপা মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে পঞ্চম শ্রেণিতে বৃত্তি পেলেন। গলাচিপা মডেল মাধ্যমিক বিদ্যালয় থেকে এসএসসিতে জিপিএ ৫ পেয়ে সবাইকে তাক লাগিয়ে দিলেন। ফাল্গুনীর কথা জানাজানি হলে ঢাকার ট্রাস্ট কলেজের অধ্যক্ষ বশির আহমেদ তাকে ঢাকায় এনে ট্রাস্ট কলেজে ভর্তি করিয়ে দেন। কলেজের হোস্টেলেই থাকতেন। এখান থেকে এইচএসসিতে মানবিকে জিপিএ ৫ পেয়ে ফাল্গুনী প্রমাণ করলেন, মানুষ চাইলে সবই পারে! পরীক্ষাকেন্দ্রে তার জন্য আলাদা বসার ব্যবস্থা করা হয়েছিল। দুই কনুইয়ের মধ্যে কলম চেপে ধরে লিখতেন তিনি।