৩২নং আওয়ামী লীগের উদ্যোগে গণভোজের আয়োজন

0
320

মোঃ ইব্রাহিম হোসেন, ঢাকা প্রতিনিধিঃ ১৫ আগস্ট জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৩তম শাহাদাতবার্ষিকী উপলক্ষে মোহাম্মদপুর থানার ৩২নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে দোয়া মাহাফিল, কোরআন তেলাওয়াতের গণভোজের আয়োজন করে।

এ সময় প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন, ঢাকা মহানগর-উত্তর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব মোঃ সাদেক খান, বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন, সহ-সভাপতি আলহাজ্ব শেখ বজলুর রহমান। এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন, মোহাম্মদপুর থানা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব মতিউর রহমান মিয়াচান, সিনিয়র সহ-সভাপতি এ্যাড. ফাহিম সাদেক খান, সহ-সভাপতি মোঃ আনসার আলী, সহ-সভাপতি মোঃ আলাউদ্দিন, যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক তোফায়েল সিদ্দিক তুহিন, যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক ফকরুদ্দিন আহমেদ বাচ্চু, যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক ইমরান উল হক ইমরান, সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃ শাহাজান খান, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক শেখ খলিলুর রহমান, মহিলা বিষয়ক সম্পাদক রোকসানা আলম’সহ প্রমুখ।

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্বে করেন মোহাম্মদপুর থানার ৩২নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি জনাব এ.কে.এম আনিসুর রহমান কাবুল, অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন জনপ্রিয় সাধাণ সম্পাদক জনাব সৈয়দ হাসান নূর ইসলাম (রাষ্টন)। অনুষ্ঠানে বক্তরা বলেন, স্বাধীনতার স্থপতি, মুক্তিযুদ্ধের সর্বাধিনায়ক জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে ১৯৭৫ সালে সূর্য ওঠার আগে খুব ভোরে সেনাবাহিনীর কিছুসংখ্যক বিপথগামী সদস্য ধানমণ্ডির বাসভবনে বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যা করেন। ঘাতকরা সেই রাতে শুধু বঙ্গবন্ধুকেই হত্যা করেনি, তাদের হাতে একে একে প্রাণ হারিয়েছেন বঙ্গবন্ধুর সহধর্মিণী বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিব, বঙ্গবন্ধুর সন্তান শেখ কামাল, শেখ জামাল ও শিশু শেখ রাসেলসহ পুত্রবধূ সুলতানা কামাল ও রোজি জামাল।

পৃথিবীর এই জঘন্যতম হত্যাকাণ্ড থেকে বাঁচতে পারেননি বঙ্গবন্ধুর অনুজ শেখ নাসের, ভগ্নিপতি আবদুর রব সেরনিয়াবাত, তাঁর ছেলে আরিফ, মেয়ে বেবি ও সুকান্ত, বঙ্গবন্ধুর ভাগ্নে যুবনেতা শেখ ফজলুল হক মণি, তাঁর অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রী আরজু মণি এবং আবদুল নাঈম খান রিন্টু ও কর্নেল জামিলসহ পরিবারের ১৬ জন সদস্য ও ঘনিষ্ঠজন। বক্তরা আরো বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের বাকী পলাতক হত্যাকারীদের বিদেশ থেকে ফিরিয়ে এনে বিচার করার জন্য সরকারের প্রতি আহ্বান জানা। অনুষ্ঠান শেষে গরিব, অসহায়, ভূমিহীন ও পথশিশুদের মাঝে গণভোজের খাবার প্যাকেট সকলের হাতে তুলে দেন।