হঠাৎ প্রধানমন্ত্রীসহ পুরো রুশ সরকারের পদত্যাগ!

0
18

 

আকস্মিক পদত্যাগের ঘোষণা দিয়েছেন রাশিয়ার প্রধানমন্ত্রী দিমিত্রি মেদভেদেভ। দেশটির প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের বার্ষিক স্টেট অফ দ্য নেশনের বক্তৃতা দেয়ার কিছুক্ষণ পরই এই ঘোষণা এসেছে।

 

বুধবার রাতে বিবিসির এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানিয়ে বলা হয়েছে, সাংবিধানিক যে পরিবর্তন আনার ঘোষণা প্রেসিডেন্ট পুতিন দিয়েছেন, তা তার ক্ষমতায় থাকাকে দীর্ঘায়িত করতে পারে।

 

পদত্যাগের ঘোষণা দেওয়ার সময় প্রধানমন্ত্রী দিমিত্রি মেদভেদেভ বলেন, প্রেসিডেন্ট পুতিন সংবিধানে পরিবর্তন আনার যে প্রস্তাব দিয়েছেন তা রাশিয়ার ক্ষমতার ভারসাম্যে তাৎপর্যপূর্ণ পরিবর্তন আনবে।

 

বিদ্যমান সংবিধান অনুসারে পুতিন ফের আরেক মেয়াদে রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট হতে পারবেন না। রাশিয়ার পার্লামেন্টের উচ্চ ও নিম্ন– উভয়কক্ষের উদ্দেশে দেওয়া ভাষণে তিনি ইঙ্গিত দেন, সাংবিধানিক পরিবর্তন আনার জন্য দেশজুড়ে ভোট গ্রহণ করা হতে পারে, যার মাধ্যমে ক্ষমতা প্রেসিডেন্টের দপ্তর থেকে পার্লামেন্টের অধিকারে চলে যেতে পারে।

 

বুধবার জাতির উদ্দেশে দেয়া ভাষণে পুতিন বলেন, রাশিয়ায় বড় ধরনের সাংবিধানিক পরিবর্তনের প্রয়োজন। প্রধানমন্ত্রীসহ অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ পদের নির্বাচনে পার্লামেন্টকে ক্ষমতা দেয়ার প্রস্তাব দেন তিনি। দেশের সাংবিধানিক পরিবর্তনের জন্য গণভোটেরও প্রস্তাব দেন পুতিন।

 

ভোটের নির্দিষ্ট কোনো দিনক্ষণ ঘোষণা না করেই তিনি বলেন, ‘সংবিধানের আমূল পরিবর্তনে দেশের মানুষের মধ্যে ভোট হওয়া প্রয়োজন বলে আমি মনে করছি। এদিকে পুতিনের কাছে পদত্যাগপত্র দেয়ার পর প্রধানমন্ত্রী দিমিত্রি মেদভেদ এখন রাশিয়ার প্রভাব বিস্তারকারী নিরাপত্তা পরিষদের প্রধান হিসেবে নিয়োগ পেয়েছেন।

 

রাশিয়ার সংবিধান অনুযায়ী, দেশটিতে কেউ দুই মেয়াদের বেশি প্রেসিডেন্ট থাকতে পারবেন না। ফলে ২০২৪ সালে মেয়াদ শেষ হওয়ার পর পুতিন বর্তমান সংবিধানের অধীনে আর রাশিয়ার নেতা থাকতে পারবেন না। তাই সংবিধান পরিবর্তনের এমন প্রস্তাব দিয়েছেন তিনি।

 

রাশিয়ার স্থানীয় দৈনিক দ্য মস্কো টাইমসের প্রতিবেদনে বলা হয়, সংবিধানের এই আমূল পরিবর্তনের মাধ্যমে পুতিন ভবিষ্যতে আবার রাশিয়ার প্রধানমন্ত্রীর ক্ষমতায় আসছেন। পুতিনের সমালোচকদের দাবি, অতীতের মতো সংবিধান সংশোধন করে ক্ষমতার কেন্দ্রবিন্দুতে থাকতেই এ পরিবর্তন আনার পরিকল্পনা তার।