ভোটে সন্তুষ্ট, সংঘর্ষের কোনো খবর আমার কাছে নেই: সিইসি

0
26

 

ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশন নির্বাচন সুষ্ঠুভাবে হচ্ছে এবং এখন পর্যন্ত কোনো অভিযোগ পাননি বলে জানিয়েছেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার কেএম নূরুল হুদা।

 

আজ শনিবার সকাল ১১টা ৫মিনিটে রাজধানীর উত্তরা ৫ নম্বর সেক্টরের আই ই এস স্কুল অ্যান্ড কলেজ কেন্দ্রের কলেজ ভবনের ৮ নম্বর কক্ষে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনে (ইভিএম) ভোট প্রয়োগ করেন তিনি। এরপর গণমাধ্যমকর্মীদের মুখোমুখি হয়ে বিভিন্ন প্রশ্নের জবাব দেন।

 

কয়েকটি নির্বাচনী কেন্দ্রে সংঘর্ষ প্রসঙ্গে প্রশ্ন করা হলে সিইসি বলেন, সংঘর্ষের কোনো খবর আমার কাছে নেই। আপনাদের কাছে শুনলাম। এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানান তিনি।

 

ভোট গ্রহণের পরিবেশ কেমন এ বিষয়ে প্রশ্ন করা হলে তিনি সন্তুষ্ট বলে জানান।

 

এ সময় ‘নির্বাচনে সকাল থেকে অনেক কেন্দ্রে হামলা, ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া ও সংঘর্ষের ঘটনা ঘটছে আপনি এমন ভোট চান কিনা’ সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে সিইসি বলেন, আমরা এমন ভোট চাই না। ভোটে কোনো গোলযোগপূর্ণ পরিস্থিতির সৃষ্টি হোক আমরা এটা প্রত্যাশা করি না। সুষ্ঠু পরিবেশ বজায় রাখার জন্য সকল প্রার্থীকে অনুরোধ করছি।

 

এক প্রশ্নের জবাবে সিইসি বলেন, ভোটার উপস্থিতি ভালো না। তবে সকালে আসেনি, বেলা বাড়ার সাথে ভোটার বাড়বে বলেও আশা প্রকাশ করেন তিনি।

 

নূরুল হুদা আরও বলেন, ইসির দায়িত্ব ভোটের পরিবেশ তৈরি করা। আমরা সেটা করেছি। তবে ভোটার আনার দায়িত্ব কিন্তু প্রার্থীদের।

 

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে সুষ্ঠু ভোট সম্পন্নে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে ভোটের সুষ্ঠু পরিবেশ বজায় রাখতে সিইসি কড়া নির্দেশ দেন।

 

বিভিন্ন কেন্দ্র থেকে বিএনপিসহ বিপক্ষ রাজনৈতিক দলের এজেন্টদের বের করে দেওয়ার বিষয়ে প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন, কেউ বললেই এজেন্ট বেরিয়ে যাবেন কেন?

 

সিইসি বলেন, এজেন্টদের ভোটকেন্দ্রে টিকে থাকার সামর্থ থাকতে হবে। কেউ বের হতে বললে বেরিয়ে যাওয়া যাবে না। প্রয়োজনে প্রিজাইডিং অফিসার ও রিটার্নিং কর্মকর্তার সাহায্য চাইতে হবে। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর প্রতি কঠোর নির্দেশনা এজেন্টদের বের করে দিলে তাদের ভিতরে প্রবেশ করার পরিস্থিতি তৈরি করতে হবে।