কালকিনিতে যৌতুকের দাবিতে গৃহবধুকে মধ্যেযুগীয় কায়দায় নির্যাতনের অভিযোগ

0
6

মাদারীপুরের কালকিনিৃতে যৌতুকের দাবিতে মিলি খানম(২২) নামে এক গৃহবধুকে মৃধ্যযুগীয় কায়দায় শারীরিক ও মানসিকভাবে নির্যাতনের অভিযোগ পাওয়া গেছে।

এ ঘটনায় ওই ভুক্তভোগী গৃহবধু কোর্টে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে একটি মামলা দায়ের করেন। আজ বুধবার সকালে ভুক্তভোগী পরিবার ও মামলা সুত্রে এ তথ্য নিশ্চিত করা হয়েছে।

ভুক্তভোগী পরিবার সুত্রে জানাগেছে, পৌর এলাকার পশ্চিম শিকারমঙ্গল গ্রামের লোকমান ফরাজীর মেয়ে মিলি খানমের সঙ্গে গৌরনদী উপজেলার খাঞ্জাপুর এলাকার বাকাই গ্রামের আবুল হোসেন পালোয়ানের ছেলে রাশেদুল ইসলামের প্রায় ৪ বছর আগে পারিবারিকভাবে বিয়ে হয়। বিয়ের দেড় বছর পর তাদের সংসারে একটি কন্যা সন্তান জন্ম গ্রহন করে। এরপর থেকেই বিভিন্ন সময় স্বামী রাশেদুল স্ত্রী মিলি খানমকে যৌতুকের টাকার জন্য চাঁপ প্রয়োগ করতে থাকে। কিন্তু মিলির পরিবার অতি দরিদ্র হওয়ায় দাবিকৃত যৌতুকের টাকা দিতে ব্যর্থ হয়। এতে করে যৌতুক লোভী রাশেদুল ক্ষিপ্ত হয়ে মিলি খানমকে প্রচন্ড মারধর করে এবং ভাত-কাপড়ে কষ্ট দিতে থাকে। এ নির্যাতনের স্বীকার হয়ে মিলি খানম তার শিশু সন্তানকে নিয়ে বর্তমানে তার দরিদ্র বাবার বাড়িতে অবস্থান করছেন। এ নির্যাতনের ঘটনায় মিলি খানম বাদী হয়ে মাদারীপুর কোর্টে স্বামী রাশেদুল ইসলামকে আসামী করে একটি মামলা দায়ের করেন।

ভুক্তভোগী গৃহবধু মিলি খানম বলেন, আমার পরিবার যৌতুক দিতে না পারায় আমাকে দিনের পর দিন আমার স্বামী রাশেদুল আমাকে প্রচন্ড মারধর করে। মারধরের ঘটনায় আমি আহত হয়ে স্থানীয়ভাবে চিকিৎসা নিয়েছি। এবং আমার গলায় চাকু ঠেকিয়ে হত্যার হুমকি দিয়ে জোরপূর্বক ডিফোর্স লেটারে সই করে নিয়ে আমাকে বাবার বাড়ি পাঠিয়ে দেয় স্বামী ও শ্বশুর-শাশুরী।

মিলির বাবা লোকমান ফরাজী বলেন, আমি একজন বৃদ্ধ গরীব মানুষ। আমি টাকা পয়শা পাবো কোথায়। আমি যৌতুকের টাকা দিতে না পারায় আমার মেয়েকে জোরপূর্বক তালাকের কাগজে সই রেখে আমার বাড়িতে পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে। আমি দেশবাসির কাছে রাশেদুলের বিচার চাই।

অভিযুক্ত রাশেদুল ইসলাম বলেন, আমার স্ত্রী লোক ভালো না। সে আমাকে তালাক দিয়ে স্বইচ্ছায় বাবার বাড়ি চলে গেছে। আমি মারধর করেনি।

কালকিনি উপজেলা লিগাল এইড কর্মকর্তা ঝর্না বেগম বলেন, যৌতুকের জন্য কোন নারীকে নির্যাতন করা যাবেন। এটা করা গুরুতর অপরাধ ও ঘৃনাযোগ্য কাজ।

এব্যাপারে কালকিনি থানার উপপরিদর্শক (এসআই) মোঃ সুমন বলেন, এ বিষয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।