প্রবাসী কর্মীদের দেশে ফেরার হার পাঁচ গুণ

0
14

 

স্বাভাবিক সময়ের তুলনায় এ বছর প্রবাসী কর্মীদের দেশে ফেরার হার পাঁচ গুণ। গত জানুয়ারি থেকে ২৪ অক্টোবর পর্যন্ত প্রায় আড়াই লাখ প্রবাসী বাংলাদেশি দেশে ফিরেছেন। ২০১৯ সালে পুরো বছরে সংখ্যাটি ছিল ৬৫ হাজারের নিচে। বেশির ভাগ প্রবাসী কর্মী ফিরেছেন করোনাকালে কাজ হারিয়ে। কেউ কেউ ছুটিতে এসে আর যেতে পারছেন না। কাউকে কাউকে বৈধতা না থাকায় ফিরতে হয়েছে। সমস্যা হলো, এই বিপুলসংখ্যক কর্মীর আবার বিদেশ যাওয়ার সুযোগ খুবই সীমিত হয়ে পড়েছে। দেশেও তাঁরা কোনো কাজ খুঁজে পাচ্ছেন না। দীর্ঘ সময় ধরে আয়হীন এসব কর্মীর পরিবার সংকটে পড়েছে। আয়হীন কর্মীদের একজন নরসিংদীর মনসুর আহমেদ। তিনি বলেন, কাতার থেকে ফেরার পর তিনি আট মাস ধরে বেকার। কিছু জমানো টাকা ছিল, তাও শেষ। এখন পরিবার নিয়ে চোখে অন্ধকার দেখছেন। দুশ্চিন্তার বিষয় হলো, গত কয়েক মাসে ফেরত আসা কর্মীর হার আরও বেড়েছে। সদ্য শেষ হওয়া অক্টোবর মাসের প্রথম ২৪ দিনের হিসাব বলছে, এ সময়ে দেশে ফিরেছেন প্রায় ৬০ হাজার কর্মী। এখন দিনে গড়ে প্রায় আড়াই হাজার কর্মী ফিরছেন। এ প্রবণতা চলতে থাকলে বছর শেষে ফিরে আসা কর্মীর সংখ্যা চার লাখ ছাড়ানোর আশঙ্কা রয়েছে। বিদেশে কর্মী পাঠানো নিয়ে সরকারি ও বেসরকারি নানা উদ্যোগ থাকলেও কাজ হারিয়ে ফিরে আসা কর্মীদের পুনর্বাসনে তেমন কোনো কার্যক্রম নেই। অভিবাসন খাতের গবেষণা প্রতিষ্ঠান সেন্টার ফর ডেভেলপমেন্ট কমিউনিকেশনসের (ডেভকম) ব্যবস্থাপনা পরিচালক হাসান ইমাম বলেন, বিদেশে কর্মী পাঠানো নিয়ে সবাই কাজ করে। কিন্তু ফিরে আসা কর্মীদের কর্মসংস্থান তৈরি নিয়ে দেশে তেমন কোনো কাজ হয় না। তিনি বলেন, ইন্দোনেশিয়া, ফিলিপাইন অনেক আগে থেকে পুনর্বাসনের কাজটি শুরু করেছে। এটি শুধু সরকারের কাজ নয়। সবার এদিকে মনোযোগ দিতে হবে।