তারিক – মোশাররফ একত্রে শিগগিরই মঞ্চে

0
4

মঞ্চ ছেড়ে গত প্রায় এক দশকের বেশি সময় ধরে টেলিভিশনের সবচেয়ে জনপ্রিয় অভিনেতাদের অন্যতম এখন মোশাররফ করিম। এইচএসসি পাস না করলে নাট্যকেন্দ্রে যোগ দেওয়া যেত না। কিন্তু মোশাররফ করিমকে সুযোগ দিয়েছিলেন এ দলের কান্ডারি তারিক আনাম খান। গুরুর মান রেখেছিলেন মোশাররফ। মঞ্চে ভালো কাজ দেখিয়েছেন। এ সূত্রে একসময় টেলিভিশন নাটক ও সিনেমায় নিজের অবস্থান শক্তপোক্ত করেছেন। গুরু তারিক আনাম খানের সঙ্গে আবার এক হতে যাচ্ছেন তিনি।

মোশাররফ করিমকে দলে নেওয়ার স্মৃতিচারণা করতে গিয়ে তারিক আনাম খান বলেন, ‘নাটকের প্রতি আগ্রহ ছিল ছেলেটার। এ কারণে নিয়ম ভেঙে তাকে দলে নিয়েছিলাম। তখন প্রথম ব্যাচে কর্মী নিচ্ছিলাম। আবেদনের যোগ্যতা ছিল এইচএসসি পাস, কিন্তু মোশাররফ তখনো পাস করেনি। সেটা গোপন না করে সে সত্য কথা বলেছিল।’

সে দিনগুলোর কথা কতটা মনে পড়ে মোশাররফের? স্মৃতি হাতড়িয়ে মোশাররফ করিম বলেন, ‘ছোটবেলা থেকেই নাটকপাড়ায় যাতায়াত ছিল। একদিন শুনলাম তারিক আনাম খান নতুন একটি দল করছেন, লোক নেবেন। ইন্টারমিডিয়েট পাস করলেই আবেদন করা যাবে। আমি তখন কেবল ইন্টারমিডিয়েট পরীক্ষা দিয়েছি, রেজাল্ট হয়নি। আমি সেটাই লিখে ভাইভা দিতে যাই। পরে ১ হাজার ৪০০ জনের যে ৪০ জনকে বাছাই করা হয়েছিল, তাঁদের মধ্যে আমিও ছিলাম।’ সেই সময়ের তারিক আনাম খানকে কীভাবে দেখেছেন? জানতে চাইলে মোশাররফ বলেন, ‘তারিক ভাইকে দেখতাম মহিলা সমিতি, বেইলি রোডে আড্ডা দিতে। তাঁদের সঙ্গে প্রায়ই থাকতেন হুমায়ুন ফরীদি, খালেদ খানরা। তারিক ভাই প্রাণবন্ত আড্ডা দিতেন। দূর থেকে মুগ্ধ হয়ে দেখতাম। তিনিই আবার যখন মঞ্চে অভিনয় করতেন, তখন বিস্মিত হতাম। কী অসাধারণ অভিনয়! চরিত্রের ভেতর ডুবে যেতেন। মনে হতো, ইশ্‌, আমি যদি এভাবে অভিনয় করতে পারতাম।’

নাট্যকেন্দ্রের সদস্য হয়েও অনেক দিন পর্যন্ত অভিনয়ের সুযোগ পাননি মোশাররফ। সেখানে তাঁর প্রাথমিক কাজ ছিল মেঝে পরিষ্কার করা, সেট সাজানো, প্রপস গোছানো, বসে বসে মহড়া দেখা, প্রদর্শনীর সময় টিকিট বিক্রি করা। কাজে তাঁর মনোযোগ ও ভালোবাসা দেখে তারিক আনাম তাঁকে অভিনয়ের সুযোগ করে দেন। তারপর প্রায় ১০টি মঞ্চনাটকে অভিনয় করেছেন গুরু-শিষ্য। তারিক আনাম খানের হাত ধরেই বিজ্ঞাপন এবং টিভি পর্দায় যাত্রা শুরু হয় মোশাররফের। ‘জয়যাত্রা’ ছবিতেও দুজনকে দেখা যায়, তবে সেখানে মোশাররফের চরিত্রটি ছিল ছোট।

শিগগিরই ‘গাঙকুমারী’ নামে একটি সিনেমার প্রধান দুটি চরিত্রে কাজ শুরু করবেন গুরু-শিষ্য তারিক ও মোশাররফ। হাওরের ঘের দখলকে কেন্দ্র করে সেই সিনেমার গল্প। এখানে মোশাররফ করিমকে দেখা যাবে খলচরিত্রে। তবে পর্দায় গুরু-শিষ্যকে এক দৃশ্যে দেখা যাবে না। এ নিয়ে কিছুটা আক্ষেপ আছে মোশাররফের। তিনি বলেন, ‘একই ছবিতে অভিনয় করলেও একসঙ্গে আমাদের দেখা যাচ্ছে না। দেখা গেলে হয়তো ভালো হতো। সেটা আমার জন্য একটা বড় সারপ্রাইজ হয়ে থাকত। তবে মহড়ায় আমাদের কথা হয়েছে। তারিক ভাই আমার চরিত্র নিয়ে কিছু সাজেশন দিয়েছেন।’

নতুন ছবিতে একত্রে দেখা না গেলেও তারিক ও মোশাররফকে শিগগিরই মঞ্চে একত্রে দেখা যাবে। দীর্ঘদিন পরে মঞ্চে ফেরার প্রস্তুতি নিচ্ছেন তাঁরা। অন্যদিকে শুরু হয়ে গেছে ‘গাঙকুমারী’ ছবির শুটিং। সাধনা আহমেদের চিত্রনাট্যে ছবিটি পরিচালনা করছেন ফজলুল কবির।