নাচোলে বালি মাটি চাপা অবস্থায় এক শিক্ষার্থীর মরদেহ উদ্ধার

0
3

চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিনিধি ঃ চাঁপাইনবাবগঞ্জের নাচোল উপজেলায় নির্মানাধীন একটি বাড়ি থেকে বালি মাটি চাপা অবস্থায় এক শিক্ষার্থীর মরদেহ উদ্ধার করেছে নাচোল থানা পুলিশ। ওই শিক্ষার্থী জেলার গোমস্তাপুর উপজেলার কালুপুর গ্রামের গোলাম মোস্তফার ছেলে তাজেমুল হক (১৫)। সে নাচোল মুন্সি হযরত আলী উচ্চ বিদ্যালয়ের নবম শ্রেনীর ছাত্র এবং নাচোল পৌরসভার শ্রীরামপুর এলাকার অটো চালক আব্দুল অহাবের নাতী।

পারিবারিক সুত্রে জানা গেছে, করোনাকালিণ সময়ে স্কুল বন্ধ থাকায় একবেলা নানার অটো চালাতো কিশোর তাজেমুল। বৃহস্পতিবার দুপুর প্রায় ২টার দিকে তাজমুলের সাথে তার নানার শেষ কথা হয়। ওই সময় সে নেজামপুরে আছে বলে নানাকে জানায়। কিন্তু সন্ধ্যা ঘনিয়ে এলেও তাজেমুল বাড়ি না আশায় এবং তার মোবাইল বন্ধ থাকায় নানা অহাব সন্ধ্যা ৬টার দিকে কয়েকজন লোক নিয়ে নাচোল-আমনুরা সড়কে তাকে খুঁজতে থাকে।

এক পর্যায়ে রাস্তায় তার অটো গাড়িটি দেখতে পেয়ে আব্দুল অহাবসহ অন্যরা নিশ্চিত হয় যে এই এলাকাতেই তার নাতি কোথাও না কোথাও আছে। পরে গাড়িটি বাসায় রেখে আবারো তাজেমুলের খোঁজে বের হয়ে তারা ওই রাস্তায় কেতাবুলের নির্মানাধীন বাড়ির ভিতরে ঢুকে ঘরের মেঝের এক কোণাতে মাটি ও বালি উঁচু দেখতে পেয়ে সেখানকার বালি সরাতে গিয়ে তাজমুলের মরদেহ দেখতে পায়।

এ সময় পুলিশকে খবর দিলে নাচোল থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে তাজেমুলের মরদেহ উদ্ধার করে। এ বিষয়ে নাচোল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. সেলিম রেজা ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে শুক্রবার বিকালে জানিয়েছেন, বৃহস্পতিবার রাত পৌনে ১১ টার সময় উপজেলার নেজামপুর ইউনিয়নের নাচোল-আমনুরা সড়কের পূর্ব পাশে চিনিশল্লা গ্রামের কেতাবুলের নির্মানাধীন বাড়ি থেকে মাটি ও বালিচাপা অবস্থায় শিক্ষার্থী তাজেমুলের মরদেহ উদ্ধার করা হয়। ওই সময় তাজেমুলের মুখমন্ডলে ও মাথায় আঘাতের চিহ্ন ছিলো। সেই সাথে তার গলায় রশির চিহ্ন রয়েছে।

ধারনা করা যায় তাকে আঘাতের পর শ্বাসরুদ্ধ করে হত্যা করা হয়েছে। এ বিষয়ে নিহতের ভাই নাইমুল হক (২৭) বাদি হয়ে নাচোল থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেছে। ঘটনার পরদিন ২০ নভেম্বর শুক্রবার সকালে পুলিশ সুপার এইচ.এম আব্দুর রকিব, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (গোমস্তাপুর সার্কেল) ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। তবে পুলিশ কাওকে আটক করতে পারেননি।