৬ মাসেও সন্ধান মেলেনি অপহৃত স্কুল ছাত্রী মিতু’র

0
323

শাহিনুর ইসলাম প্রান্ত, লালমনিরহাট: অপহরণের ৬ মাস পেড়িয়ে গেলেও আজও সন্ধান মেলেনি লালমনিরহাটের হাতীবান্ধা উপজেলার স্কুল ছাত্রী মৌমিতা আক্তার মিতু (১৬)। অবশেষে অপহৃত মেয়েকে উদ্ধার করতে আদালতের স্মরনাপন্ন হন স্কুল ছাত্রী মিতুর পরিবার।

আদালতের মামলা সুত্রে জানা গেছে, হাতীবান্ধা উপজেলার খোদ্দ বিছনদই গ্রামের মশিউর রহমানের মেয়ে ভোটমারী এসএসসি উচ্চ বিদ্যালয়ের ১০ম শ্রেনীর ছাত্রী মৌমিতা আক্তার মিতু প্রতিদিনের ন্যায় গত ১ মার্চ বিকালে কয়েকজন বান্ধবীকে নিয়ে বাড়ির পাশের লালমনিরহাট বুড়িমারী মহাসড়কে হাটতে বেড়িয়েছিল ওই সময় বান্ধবীদের বিদায় করে দিয়ে বাড়ি ফিরছিল মিতু। সে পাশে কালীগঞ্জ উপজেলার ভোটমারী তেল পাম্পের পাশে পৌছলে নীলফামারী জেলার জলঢাকা উপজেলার তালুক শৈলমারী বড়বাড়ি গ্রামের সফিকুল ইসলামের ছেলে ফাইন(২৫) মোটর সাইকেলে তুলে মিতুকে অপহরন করে।

বিভিন্ন স্থানে খোজাখুজি করে মিতুর সন্ধান না পেয়ে ৪ মার্চ হাতীবান্ধা থানায় একটি জিডি(১৪৬) করেন তার বাবা মশিউর রহমান। ফাইনের বাড়িতে মিতু রয়েছে স্থানীয় সুত্রে পাওয়া এমন একটি তথ্যে গ্রাম পুলিশ মাধ্যমে নিশ্চিত হন মিতুর বাবা। এরপর হাতীবান্ধা থানায় অভিযোগ দায়ের করে মেয়েকে উদ্ধার দাবি করে মশিউর রহমান। পুলিশ সে অভিযোগটি আমলে না নেয়ায় আদালতে ফাইনসহ ৮ জনের বিরুদ্ধে একটি অপহরন মামলা দায়ের করেন মিতুর বাবা। আদালত মামলাটি আমলে নিয়ে কালীগঞ্জ থানাকে মামলাটি রুজ্ব করার নির্দেশ দেন। এরই মাঝে  ৬ মাস কেটে গেলেও মেয়ের সন্ধান পাননি তার পরিবার।

এ বিষয় মিতুর বাবার মশিউর রহমান কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমার মেয়েকে অনেক দিন থেকে স্কুল যাওয়ার পথে ইফটিজিং করতো। মেয়ে মিতু বাসায় এসে তার মাকেও বলতেন। এভাবে আমার মেয়েকে অপহরন করবে আমরা চিন্তা করতে পারি নি। কালীগঞ্জ থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা(ওসি) মকবুল হোসেন বলেন, আসামীগন নীলফামারীতে থাকার কারণে ওই জেলার পুলিশ সহয়তা নিয়ে ৮জন আসামীকে গ্রেফতার করার চেষ্টা চলছে।