সরকার প্রতিহিংসা পরায়ণ হয়ে উঠেছে-রুহুল কবির রিজভী

0
105

ঢাকা প্রতিনিধিঃ   মঙ্গলবার( ২ অক্টোবর) সকালে রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে দলের সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেন, পাতানো নির্বাচন করতে চায় বলেই বিএনপি নেতাদের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দেয়া হচ্ছে।

তিনি বলেন, ভয় পেয়ে সরকার বিএনপির বিরুদ্ধে এই ধরনের আচরণ শুরু করেছে। হাতিরঝিল থানায় বিএনপির শীর্ষ নেতাদের মামলা প্রত্যাহারের দাবি জানান রিজভী।

বিএনপির এই নেতা বলেন, সরকার প্রতিহিংসা পরায়ণ হয়ে উঠেছে। নির্বাচন সামনে রেখে সরকার বিরোধী মত শূন্য করার ষড়যন্ত্রে মেতে উঠেছে। বিএনপি মহাসচিব সহ স্থায়ী কমিটির সদস্যদের নামে হাতিরঝিল থানায় মামলা তারই বহিঃপ্রকাশ।

তিনি আরও বলেন, ‘আওয়ামী সরকার আর কোন ভাবে বিরোধী দলের অস্তিত্ব মানতে পারছে না। তারা এখন ফ্যাসিবাদের চরম মাত্রায় পৌঁছে গেছে। বিএনপির বিশাল জনসমাবেশের পর থেকে সরকার আরও বেশি ক্ষিপ্ত ও প্রতিশোধ পরায়ণ হয়ে উঠেছে। জনসভা শেষে পাইকারি হারে বিএনপির কর্মীদের গ্রেফতারের পরেও সরকারের পরিতৃপ্তি হয়নি। এরপর বিএনপির জ্যেষ্ঠ নেতাদের তালিকা ধরে হাস্যকর মিথ্যা মামলা দায়ের করা হয়েছে। আগামী জাতীয় নির্বাচনের পূর্বে সরকার ছক ধরে এগুচ্ছে। অনেক কিছুতেই সরকার ভয় পাচ্ছে। ভয় পেয়েই সরকার বিএনপির  নেতাদের বিরুদ্ধে মামলা দিয়েছে।’

হাতিরঝিল থানায় পুলিশের কাজে বাধা ও নাশকতার দায়ে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, বিএনপি জাতীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য যথাক্রমে ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ, মির্জা আব্বাস, বাবু গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, ড. আব্দুল মঈন খান, নজরুল ইসলাম খান, আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী, চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা কাউন্সিলের সদস্য আমান উল্লাহ আমান, রুহুল কবির রিজভী এবং সাংগঠনিক সম্পাদক এ্যাডভোকেট রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলুসহ ৫৫ জনকে আসামী করে মামলা দেয়া হয়েছে।

এই মামলার বিরুদ্ধে রিজভী তীব্র প্রতিবাদ জানান এবং অবিলম্বে মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবি জানান।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন, বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব খায়রুল কবির খোকন, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুস সালাম, সহ-দপ্তর সম্পাদক মুনির আহমেদ প্রমুখ।