২ মাসেও সন্ধান মেলেনি অপহৃত ঝিনাইদহের স্কুল ছাত্রী ডরিনের

0
175

আব্দুল্লাহ আল মামুন, ঝিনাইদহ॥ ঝিনাইদহের শৈলকুপা উপজেলার ১১নং আবাইপুর ইউনিয়নের কৃপালপুর আবু আহম্মেদ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের অষ্টম শ্রেনীর ছাত্রীঅপহৃত ডরিনের ২মাসেও সন্ধান মেলেনি। এ ঘটনায় ডরিনের পিতাবাদী হয়ে ২জনসহ অজ্ঞাত আরো দুই/তিনজনকে আসামী করেশৈলকুপা থানায় একটি অপহরন মামলা দায়ের করেছেন।শৈলকুপা থানায় দায়েরকৃত মামলা সূত্রে জানা যায়, আবাইপুরইউনিয়নের কৃপালপুর আবু আহম্মেদ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের অষ্টমশ্রেণীর ছাত্রী ডরিন গত ২১ আগষ্ট ২০১৮ তারিখ মঙ্গলবার সকালেনিজ বাড়ী হইতে প্রাইভেট পড়ার উদ্দেশ্যে একই গ্রামের ইকবালআতাহারের কাচারীতে শিক্ষক সঞ্জীত কুমারের কাছে যাওয়ার সময়অপহৃত হয়।

এ ঘটনায় ডরিনের পিতা বাদি হয়ে পদ্মনগর গ্রামেরপ্রবাসি নজরুল ইসলাম মোল্যার ছেলে সাজন(২৩) ও চররুপদাহগ্রামের মৃত আঃ বারিক বিশ্বাসের ছেলে রান্নু(৪৫)সহ আরো২/৩জন নামে শৈলকুপা থানায় একটি অপহরন মামলা দায়ের করেন।যাহার মামলা নং-১৭ তাং ২১/০৮/২০১৮।ডরিনের পিতা বাদশা জানান, তার মেয়ে ২০১৮ সালের জেএসসিপরীক্ষার্থী। দীর্ঘদিন ধরে তার নাবালিকা মেয়েকে স্কুলে যাতায়াতেরসময় চররূপদাহ গ্রামের সাজন মোল্লা প্রায় উত্যক্ত ও বিভিন্ন কু-প্রস্তাব দিয়ে আসছিলো। এ বিষয়ে সাজনের পরিবারকে অবহিত করাহলেও তারা কোন কর্ণপাত করেন নাই। গ্রামে গণ্যমান্যব্যক্তিবর্গকে ঘটনা সম্পর্কে অবহিত করা হয়। এরপরও সাজনপ্রতিনিয়তই তার নাবালিকা মেয়েকে উত্যক্ত করেই আসছিলো।

গত২১ আগষ্ট ইদের আগের দিন মঙ্গলবার সকালের দিকে নিজ বাড়ী হইতেপ্রাইভেট পড়ার উদ্দেশ্যে রওনা হয়। পড়তে যাওয়ার সময় তার মেয়েকেদুইটি মটরসাইকেল যোগে জোরপূর্বক তুলে নিয়ে যায় লম্পটসাজন। এ ঘটনায় সাজনের পরিবারের সম্পৃক্ততা থাকায় ঐদিনেইতারা স্ব-পরিবারে গা-ঢাকা দিয়েছে। আমি মেয়েকে ফিরে পেতেআইয়নের আশ্রয় নিয়েছি।

গত ০৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮ তারিখে জেলা আইন শৃংঙ্খলা মিটিংয়েজানা যায় ০৫/০৮/২০১৮ তারিখের নোটারী পাবলিকে বিবাহ হয়স্বাজন ও ডরিনের। যা সম্পুন্ন অবৈধ্য।এ বিষয়ে শৈলকুপা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আয়ুুবুর রহমানজানান, অপহৃত অষ্টম শ্রেনীর স্কুল ছাত্রী ডরিনকে উদ্ধারের সর্বাক্তকপ্রচেষ্টা চালানো হচ্ছে। আসামী গ্রেফতার সহ মেয়েকে উদ্ধারেরতৎপরতা অব্যাহত এবং থাকবে।আব্দুল্লাহ আল মামুন ঝিনাইদহ । ০৭১৩-৯০৬৭৩৮১০ অক্টোবর ২০১৮ঃ