আনোয়ার জাহিদ স্মরণে দেশ আজ এক ব্যক্তির কাছে বন্দী: মোস্তফা

0
449

মোঃ ইব্রাহিম হোসেন, ঢাকা প্রতিনিধিঃ  প্রখ্যাত রাজনীতিক ও সাংবাদিকে জননেতা আনোয়ার জাহিদ স্মরণে আয়োজিত সভায় নেতৃবৃন্দ বলেন, দেশের রাজনীতি এখন রাজনীতিবিদদের নিয়ন্ত্রনের বাইরে। আর সেই কারণেই দেশে আইনের শাসন ও জবাবদিহিতা অনুপস্থিত।  ১২ জুন ২০১৮ রোজ মঙ্গলবার নয়াপল্টস্থ যাদু মিয়া মিলনায়তনে ‘বরেণ্য রাজনীতিক ও সাংবাদিক জননেতা আনোয়ার জাহিদের ৮৩ তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে’ জননেতা আনোয়ার জাহিদ স্মৃতি সংসদ আয়োজত স্মরণসভায় নেতৃবৃন্দ এসব কথা বলেছেন। এনডিপি ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মো. মঞ্জুর হোসেন ঈসা’র সভাপতিত্বে আলোচনায় অংশগ্রহন করেন বাংলাদেশ ন্যাপ মহাসচিব এম. গোলাম মোস্তফা ভুইয়া, ডিএল সাধারণ সম্পাক সাইফুদ্দিন আহমেদ মনি, গণতান্ত্রিক ঐক্যের আহ্বায়ক রফিকুল ইসলাম, ন্যাপ সাংগঠনিক সম্পাদক মো. কামাল ভুইয়া, ঢাকা মহানগর সদস্য সচিব মো. শহীদুননবী ডাবলু প্রমুখ। ন্যাপ মহাসচিব এম. গোলাম মোস্তফা ভুইয়া বলেন, রাজনীতির নিয়ন্ত্রন রাজনীতিকদের হাতে না থাকার ফলে রাষ্ট্রে এক ধরনের অস্থিরতা বিরাজ করছে। রাষ্ট্রে জাতীয় ঐক্য প্রতিষ্ঠায় জাতীয় এজন্ডাও নির্ধারন হয় নাই। স্ব্ধাীনতার ৪৭ বছরেও জাতীয় এজন্ডা নির্ধারন করতে না পারা আমাদের চরম ব্যর্থতা। বরেণ্য রাজনীতিক ও সাংবাদিক জননেতা আনোয়ার জাহিদ রাজনীতিকে দুবৃত্তায়ন মুক্ত করতে আজীবন সংগ্রাম করেছেন। আর সেই কারনেই তাকে বার বার লাঞ্চিত হতে হয়েছে সুবিধাবাদী রাজনীতিকদের দারা। তিনি বলেন, রাজনীতিক জীবনে আনোয়ার জাহিদ তার রাজনৈতিক প্রতিপক্ষের কঠোর সমালোচনরা করলেও কারো সর্ম্পকে কুটুক্তি বা অশ্লিষ শব্ধ ব্যাবহার করতেন না। যা আজকের রাজনীতিতেই ক্রমেই কমে হ্রাস পাচ্ছে। তিনি সারাটা জীবন জাতীয় ঐক্যের রাজনীতি করেছেন। তার প্রদর্শিত পথে ঐক্য প্রতিষ্ঠিত হয়েছে, জাতীয়তাবাদী শক্তি ক্ষমতা ভোগ করেছে। দুঃখ জনক হলেও সত্য যে, আনোয়ার জাহিদ প্রতিষ্ঠিত ঐক্যের শাসমালেও তিনি অবহলার ও অপমানের শিকার হয়েছেন। ডিএল সাধারণ সম্পাদক সাইফুদ্দিন আহমেদ মনি বলেন, দেশকে আবারো রাজনীতি শূণ্য করার চেষ্টা চলছে। ফলে গণতন্ত্র হুমকির মুখে। দেশের সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়া কারাগারে, গুরুতর অসুস্থ। সরকার তার সুচিকিৎসারও ব্যবস্থা করছে না। আর এই মুহুর্তে কোন দুর্ঘটনা ঘটলে তার দায় সরকার এড়াতে পারবে না। তিনি বলেন, দেশ ও গণতন্ত্রের এই সঙ্কটময় মূহুর্তে আনোয়ার জাহিদের মত দেশপ্রেমিক, প্রাজ্ঞ নেতৃত্ব খুবই প্রয়োজন ছিল। সভাপতির বক্তব্যে মো. মঞ্জুর হোসেন ঈসা বলেন, মজলুম জননেতা মওলানা ভাসানী ও জাতীয় নেতা মশিউর রহমান যাদু মিয়া পরবর্তী জাতীয়তাবাদী ও গণতান্ত্রিক রাজনীতির স্বার্থক নেতৃত্ব আনোয়ার জাহিদ। আধিপত্যবাদ-সা¤্রাজ্যবাদ বিরোধী রাজনীতির এক উজ্জ্বল নক্ষত্র ছিলেন জনননেতা আনোয়ার জাহিদ। যখন রাজনীতিদের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগে আঙ্গুল উঠানো হয় তখন আনোয়ার জাহিদকে উপস্থিত করা যায় সততা দৃষ্টান্ত হিসাবে।
স্মরণ সভায় মরহুম আনোয়ার জাহিদের রুহের মাগফেরাত কামনা করে বিশেষ মোনাজাত করা হয়। এছাড়াও গুলশানে এবং শাহিনবাগে পারিবারিকভাবে বিশেষ দোয়া অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়।