নওগাঁয় টাকার নিয়ে মাদক ব্যবসায়ীকে ছেড়ে দেওয়ায় পুলিশের বিরুদ্ধে অভিযোগ

0
706

আশরাফুল নয়ন,নওগাঁঃ নওগাঁর ধামইরহাট থানা পুলিশের বিরুদ্ধে ফেনসিডিলসহ মাদক ব্যবসায়ীকে আটক করে টাকা নিয়ে ছেড়ে দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে। গত ৫ আগষ্ট বরিবার বিকেলে থানার রুপনারায়নপুর গ্রামের চিহ্নিত মাদকব্যবসায়ী আজিজারের বাড়ি হতে ৯ পিছ ফেনসিডিল সহ ঐ মাদক ব্যবসায়ীসহ দুজনকে আটক করা হয়। আটককৃত মাদকব্যবসায়ী দুজন হল আজিজারেরছেলে মিলন(২৫) ও পার্শ্ববতী বদলগাছী উপজেলার পাহাড়পুর গ্রামের হাফিজারেরছেলে আতিক হোসেন(৩২)। সূত্রে জানা যায়, ধামইরহাট উপজেলার চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ী আজিজাররহমান।

সরকারের মাদক বিরোধী অভিযানের কারনে এলাকার মাদক ব্যবসায়ীরাগাঁ ঢাকা দিলেও আজিজার ও তার পরিবার জমজমাট ভাবে মাদক ব্যবসা করেচলেছে। পাশেই বর্ডার হতে মাদক নিয়ে এসে নিজে খুচরা বিক্রি সহবিভিন্ন মাদক ব্যবসায়ীর নিকট পাইকারী বিক্রি করেন। আর আতিক হোসেনতার পাইকারী ক্রেতার মধ্যে একজন। যিনি প্রায় প্রতিদিনই আজিজারের বাড়িগিয়ে বসে থাকেন আর সুযোগ মত ফেনসিডিল নিয়ে এসে বদলগাছীউপজেলার বিভিন্ন এলাকায় সরবরাহ করেন।

রবিবারও আতিক একই উদ্দেশ্যেআজিজারের বাড়িতে অবস্থান করছিল। এমন সময় বিকেল প্রায় সাড়ে ৩টারদিকে ধামইরহাট থানার এএসআই নুর নবী অভিযান চালিয়ে ৯ বোতলফেনসিডিল সহ আজিজারের ছেলে মিলন ও আতিককে আটক করে।পরে আটককৃত দুজনকে থানায় নিয়ে এসে দীর্ঘ সময় ধরে দাম দরের পর ৬০হাজার টাকার বিনিময়ে রাতে আতিককে ছেড়ে দেওয়া হয়। তবে তারমোটরসাইকেলটির কাগজ না থাকায় আটকিয়ে রাখা হয়।

পরে কাগজপত্র নিয়েগিয়ে গাড়িও নিয়ে আসেন। এ বিষয়ে এএসআই নুর নবী টাকা নিয়ে আসামী ছেড়ে দেওয়ার বিষয়টিঅস্বীকার করে বলেন,ঘটনাস্থল হতে দুজনকে আটক করা হলেও একজন ঐ বাড়ির আত্মীয়ের  ছিল সেজন্য তাকে ছেড়ে দিয়ে একজনের নামে মামলা দেওয়া হয়েছে।তবে কেমন আত্মীয় এ বিষয়ে তিনি কোন উত্তর দিতে পারেনি।

ধামইরহাট থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) জাকিরুল ইসলাম বলেন, যাকেছেড়ে দেওয়া হয়েছে তার বিষয়ে বদলগাছী থানায় খোজ নিয়ে জানা গেছেমাদক বিষয়ে তার নামে কোন মামলা নেই। সে একজন ডেকোরেটর ব্যবসায়ীসেজন্য ছেড়ে দেওয়া হয়েছে এবং টাকা নিয়ে ছেড়ে দেওয়ার বিষয়টি সত্য নয়।