‘মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ’ ছাত্রলীগের লাঠিয়াল বাহিনী, ‘র’ এর এজেন্ট: ভিপি নুর

0
31

 

মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ সারাদেশের ছাত্রলীগের চিহ্নিত সন্ত্রাসীদের নিয়ে গঠিত হয়েছে জানিয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদের (ডাকসু) সহ-সভাপতি (ভিপি) নুরুল হক নুর বলেছেন, ‘মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ’ ছাত্রলীগের মুখোশধারী লাঠিয়াল বাহিনী এবং ভারতের ক্ষমতাসীন বিজেপি ও দেশটির গোয়েন্দা সংস্থা ‘র’ এর এজেন্ট।

 

তিনি বলেছেন, মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ ভারতের সাম্রাজ্যবাদী আগ্রাসনের দালাল হিসেবে কাজ করছে। তারা বাংলাদেশে ভারতীয় সাম্রাজ্যবাদ প্রতিষ্ঠা করতে চায়। এরা মুক্তিযুদ্ধের নামে দেশে সন্ত্রাসী কার্যক্রম চালাচ্ছে।

 

মঙ্গলবার (১৭ ডিসেম্বর) ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সন্ত্রাসবিরোধী রাজু ভাস্কর্যের সামনে আয়োজিত এক সংহতি সমাবেশে বক্তৃতায় নুর এ কথা বলেন।

 

 

 

ভারতে বিতর্কিত জাতীয় নাগরিকপঞ্জি (এনআরসি) ও নাগরিকত্ব সংশোধনী আইনের (সিএএ) বিরুদ্ধে আন্দোলনরতদের প্রতি সংহতি জানাতে এ সমাবেশের আয়োজন করা হয়। সমাবেশে অতর্কিত হামলা চালায় মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের একাংশ।

 

হামলায় নুর ও ডাকসুর সমাজসেবা সম্পাদক আখতার হোসেনসহ অন্তত ১০ জন আহত হয়েছেন। পরে আহতাবস্থায় সমাবেশে বক্তব্য দেন ভিপি নুর। বাংলাদেশ এখন বাংলাদেশ সরকার চালায় না উল্লেখ করে ভিপি নুর বলেন, বাংলাদেশ এখন প্রতিবেশী রাষ্ট্র ভারত চালাচ্ছে। বাংলাদেশকে এখন ভারতের অঙ্গরাষ্ট্র পরিণত করতে চাইছে তারা। বাংলাদেশ এখন অস্তিত্বের সংকটে। আজকে বাংলাদেশের পক্ষে কথা বলতে গিয়ে আমার আঙুল ভেঙেছে। আমি বাংলাদেশের পক্ষে কথা বলে নিজের জীবন দিতে প্রস্তুত আছি। হামলা-মামলা করে আমাদের দমিয়ে রাখতে পারবে না।

 

ভারতে নাগরিকত্ব সংশোধনী আইন পাসের সমালোচনা করে ভিপি নুর বলেন, ভারতীয়দের উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে বাংলাদেশে পাঠানোর চক্রান্ত হচ্ছে। আমরা বাংলাদেশের ছাত্রসমাজ এই বিতর্কিত এনআরসির বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করার জন্য এখানে মিলিত হয়েছি। এসময় ভারতের দালাল বিজেপির এজেন্ট সন্ত্রাসী সংগঠন মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ আমাদের ওপর হামলা করে।

 

বাংলাদেশ সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির এক উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত উল্লেখ করে ভিপি নুরুল হক নুর বলেন, এখানে হিন্দু-মুসলিম সবাই আমরা ভাই ভাই। কিন্তু ভারত এনআরসির মাধ্যমে মুসলিমদের নির্যাতিত করে আরেকটি জাতিগত হত্যার ষড়যন্ত্র করছে।

 

তিনি অভিযোগ করেন, দেশের ভোটারবিহীন অবৈধ সরকার অবৈধভাবে ভারতের সাম্প্রদায়িক শক্তি বিজেপির সাথে আঁতাত করে বাংলাদেশকে একটি বাতিল রাষ্ট্রে পরিণত করার কূটকৌশল করছে। এরই অংশ হিসেবে আমরা যখন ভারতের ছাত্র-জনতার আন্দোলনের প্রতি সংহতি জানাতে একত্রিত হয়েছি, তখন এই বিজেপির এজেন্ট মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের মাধ্যমে আমাদের ওপর হামলা করিয়েছে।

 

ডাকসুর ভিপি বলেন, দেশের স্বার্থবিরোধী আর কোনো সিদ্ধান্ত নিতে দেব না আমরা। আমাদের শরীরে রক্তের শেষ বিন্দু থাকা পর্যন্ত বাংলাদেশকে ভারতের হাতে ইজারা দিতে দেব না।

 

ডাকসুর সমাজসেবা সম্পাদক আখতার হোসেন বলেন, জীবনের শেষ রক্তবিন্দু থাকা পর্যন্ত ভারতের আধিপত্য কায়েম হতে দেব না। সরকারের নীরব ভূমিকার জন্য দেশ আজ অন্যের হাতে।

 

আজকের হামলার প্রতিবাদে আগামীকাল বুধবার (১৮ ডিসেম্বর) দুপুর ১২টায় সব বিশ্ববিদ্যালয় ও কলেজে ছাত্রসমাবেশের ডাক দেন ডাকসু ভিপি নুর।